গোসলের সময় এই ভুল করছেন না তো আপনি?

ডেস্ক রিপোর্ট।। প্রতিদিন তো একই রকমভাবে গোসল করি। এর আবার নিয়ম কী? শিরোনাম পড়ে নিশ্চয়ই এমনটাই ভাবছেন? অবাক হওয়ার কিছু নেই। আপনি কি জানেন, গোসলের সময় ছোট ছোট কিছু ভুল অজান্তেই আপনার ত্বক এবং চুলের ক্ষতি করছে। না জেনে থাকলে আজই জেনে নিন। এবং গোসলের সময় কিছু অভ্যাস গড়ে তুলুন।

রিডার্স ডায়জেস্টে গোসলের সময় হয়ে থাকে এমনই কিছু ছোট ছোট ভুল তুলে ধরা হয়েছে। চলুন, এক নজরে দেখে নিন গোসলের সময় কী কী নিয়ম মেনে চলবেন-

নখ দিয়ে মাথার তালু স্ক্রাব করা : মাথার তালু স্ক্রাব করা চুলের জন্য খুবই উপকারী। কিন্তু এই কাজটি যদি আপনি নিজের হাতের নখ দিয়ে করে থাকেন তাহলে তা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। আর এই কাজ গোসলের সময় হরহামেশাই আপনি করে থাকেন। ‘আপনার হাতের নখ মাথার তালুতে আচড়ের দাগ ফেলতে পারে এবং ত্বকের কোষ নষ্ট করে ফেলে’- বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আরকানসাসের জনসন ডার্মাটোলোজি ইন ফোর্ট স্মিথের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্যান্ডি জনসন। নখের পরিবর্তে আঙুলের সামনের দিকের নরম অংশ দিয়ে স্ক্রাবিং করুন। যা ত্বকের জন্য উপকারী এবং স্বাস্থ্যসম্মত। আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় অবশ্যই মনে রাখবেন যে, হাত দিয়ে রুক্ষভাবে চুল ঘষবেন না। এতে চুলের ক্ষতি হয় এবং চুলের গোড়া নরম হয়ে চুল উঠে যায়। তাই আলতোভাবে চুল ধোয়ার চেষ্টা করুন। যাতে চুলের কোনো ক্ষতি না হয় আবার চুল ভালোভাবে পরিষ্কারও হয়।

আপনার সাবানে কোনো ময়েশ্চরাইজার থাকে না : ‘সাধারণত অনেক সাবান রয়েছে যাতে কোনো ময়েশ্চরাইজার থাকে না। যেমন-সুগন্ধি সাবান, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবানে ময়েশ্চারাইজার না থাকার ফলে ত্বক অনেক বেশি শুষ্ক হয়ে যায় এবং ত্বকের নমনীয়তা নষ্ট হয়ে যায়’- বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের কানেক্টিকাটের অ্যাডভান্সড ডার্মকেয়ার ইন ড্যানইউরির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোনা গোহারা। তাই ময়েশ্চরাইজার সমৃদ্ধ সাবান ব্যবহার করুন। যা ত্বককে নরম এবং মসৃণ রাখবে।

আপনার গোসল দীর্ঘসময়ের : ড. গোহারা বলেন, ‘অনেকেই আছেন যারা অনেকক্ষণ ধরে গোসল করেন। মনে করেন যে দীর্ঘসময় ধরে গোসল করলে শরীরের ময়লা ভালোভাবে পরিষ্কার হয়ে যাবে। শরীরের ময়লা পরিষ্কার হয় ঠিকই কিন্তু এতে শরীরের স্বাভাবিক তেল নিঃসরণ কমে যায়। যার ফলে ত্বক হয়ে পরে শুষ্ক এবং রুক্ষ। তাই দীর্ঘসময় ধরে গোসল করা শরীরের ত্বকের জন্য একেবারেই ঠিক না।’ আবার অনেকে গরম পানি ছাড়া গোসল করেন না। তাদের জন্য বলছি, গরম পানির কারণে ত্বকের কোষ খুলে যায় যা বরফ ছাড়া বন্ধ হয় না। এর ফলে লোমকূপের মধ্যে ময়লা জমে এবং থেকে যায়। যা পরে ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করে। তাই চেষ্টা করুন সবসময় সাধারণ পানি দিয়ে গোসল করার।

কন্ডিশনার ব্যবহারে ভুল : অনেকে শুধু চুলে কন্ডিশনার ব্যবহার করেন। এর কারণ হলো সবার ধারণা মাথার তালুতে কন্ডিশনার ব্যবহার করলে চুল পরে যায়। তাই তারা শুধু চুলে কন্ডিশনার ব্যবহার করেন। কিন্তু ড. জনজন এক্ষেত্রে ভিন্ন মত প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘চুলের আগা থেকে শুরু করে মাথার তালুতে ভালো করে কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এটি মাথার ত্বকের জন্য খুবই কার্যকর এবং এটি খুশকির ব্যাকটেরিয়াকেও ধ্বংস করে। তাই আজ থেকে আর ভুল পদ্ধতিতে কন্ডিশনার ব্যবহার করবেন না। পুরো মাথায় কন্ডিশনিং করুন। এতে চুল ঝরঝরে হবে এবং মাথার ত্বক ভালো থাকবে।

স্ক্রাবার দিয়ে শরীর ঘষা : আপনি কি গোসলের সময় স্ক্রাবার দিয়ে ঘষে ঘষে শরীর পরিষ্কার করছেন? তাহলে এখনই জেনে নিন এর ক্ষতিকর দিক সম্বন্ধে। ড. গোহারা বলেন, ‘স্ক্রাবার অনেক খসখসে হয়ে থাকে যা ত্বকের স্বাভাবিক প্রতিরক্ষামূলক আবরণ নষ্ট করে ফেলে।’ তাই তিনি পরামর্শ দিয়েছেন তুলার স্ক্রাবার ব্যবহার করতে। হাত সব থেকে ভালো উপায়ে ময়লা পরিষ্কার করে। তাই সব সময় চেষ্টা করুন হালকা ভাবে হাত অথবা তুলার স্ক্রাবার দিয়ে শরীর পরিষ্কার করতে।

বেশি ব্লেড সমৃদ্ধ শেইভের রেজার ব্যবহার : হয়তো চার-পাঁচটি ব্লেড সমৃদ্ধ রেজার দিয়ে শেইভ করা খুবই সহজ। আর ভালোভাবে পরিষ্কারও হয়। কিন্তু এই ব্লেড যে আপনার ত্বকের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর সেটা কী আপনি জানেন? ড. গোহারা বলেন, অতিরিক্ত ব্লেড সমৃদ্ধ রেজার ত্বককে রুক্ষ করে ফেলে এবং ত্বক কেটে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে। তাই দু-একটি ব্লেড সমৃদ্ধ রেজার ব্যবহার করুন। যা আপনার ত্বকের কোনো ক্ষতি করবে না এবং অবশ্যই নিচের দিকে শেইভ করবেন। উল্টো দিক দিয়ে শেইভ করলে দাঁড়ির গোড়া ফেটে যায় এবং ত্বক খসখসে হয়ে যায়। এবং ভালো মানের শেইভিং ক্রিম ব্যবহার করবেন। কারণ নিজের সুস্থ ত্বকের থেকে কোনো কিছুই বেশি গুরুত্বের না।

শরীর ভালোভাবে পরিষ্কার না করা : গোসলের সময় অবশ্যই ভালো করে শরীর এবং মাথা পরিষ্কার করুন। যাতে সাবান এবং শ্যাম্পো অবশিষ্ট না থাকে। গোসলের পরও যদি এগুলো থেকে যায় তাহলে এলার্জি তৈরি হতে পারে। যাদের ব্রনের সমস্যা আছে তাদের ব্রন বেড়ে যেতে পারে। তাই ত্বকের যেকোনো সমস্যা এড়াতে গোসলের সময় পানি দিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করার পরামর্শ দিয়েছেন ড. জনসন।

গোসলের পর ময়েশ্চরাইজার ব্যবহারে দেরি : গোসলের পরপর যতটা সম্ভব তাড়াতাড়ি শরীর ভেজা থাকা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এমনটাই পরামর্শ দিয়েছেন ড. গোহারা। তিনি বলেন, ‘শরীর ভেজা থাকা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার লাগানো ত্বকের জন্য ভালো। এতে ত্বক নরম এবং মসৃণ থাকে।’ তাই গোসলের পর পরই ময়েশ্চরাইজার বা লোশন ব্যবহার করার অভ্যাস করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *